1. info@www.khulnarkhobor.com : khulnarkhobor :
বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ০২:২৭ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি/বিজ্ঞাপন
Copyright © 2022 KhulnarKhobor.com    বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৪৭,আপার যশোর রোড (সঙ্গীতা হোটেল ভবন) নীচতলা,খুলনা-৯১০০।ফোন:০১৭১০-২৪০৭৮৫,০১৭২১-৪২৮১৩৫। মেইল:khulnarkhobor24@gmail.com।জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা আইনে তথ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক নিবন্ধন আবেদিত।স্মারক নম্বর:- ০৫.৪৪.৪৭০০.০২২.১৮.২৪২.২২-১২১।এই নিউজ পোর্টালের কোন লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
খুলনার খবর
উত্তাল খুলনা: কোটা সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধ লোহাগড়ায় দুটি মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে শিক্ষার্থী নিহত,আহত ৪ চলছে কমপ্লিট শাটডাউন; সারা দেশে মোবাইল ইন্টারনেট বন্ধ খুলনায় ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ; সারাদেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন কেশবপুর থানা পুলিশের সাঁড়াশি অভিযানে ৩ মাদক ব্যবসায়ী নড়াইলে পুকুরে গোসল করতে গিয়ে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীর মৃত্যু মোংলায় হু হু করে বাড়ছে সবজি ও মাছের দাম: সাধারণ ক্রেতাদের নাভিশ্বাস পবিত্র আশুরা উপলক্ষ্যে কোরআন তেলাওয়াত প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠান মোরেলগঞ্জে পরিবহনের ধাক্কায় নিহত-১ ছাত্র হত্যা ও ছাত্রীদের লাঞ্ছিত করার প্রতিবাদে খুলনায় ইসলামী আন্দোলনের মিছিল কাল বৃহস্পতিবার সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা অনির্দিষ্টকালের জন্য কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ২৪ ঘন্টার ব্যবধানে মধুমতী নদী থেকে আরও এক অজ্ঞাত নারীর লাশ উদ্ধার অনির্দিষ্টকালের জন্য খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা সকল সিটি করপোরেশন এলাকায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষনা শার্শায় বাল্য বিবাহ নিরোধ ও সচেতন মূলক সভা অনুষ্ঠিত নড়াইলে ৬০পিস ইয়াবা ও ১৫ পুরিয়া(০১ গ্রাম) হিরোইনসহ ৪ মাদক কারবারি গ্রেফতার দেশের সব স্কুল-কলেজ অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা যশোরে কোটাবিরোধী আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা

কেশবপুরের আওতাধীন নরনিয়া স্লুইচ গেটের সম্মুখের পলি অপসারণ স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে শুরু

  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট, ২০২২
  • ৩৬৭ বার শেয়ার হয়েছে

পরেশ দেবনাথ,কেশবপুর,যশোর // যশোরের কেশবপুরের আওতাধীন নরনিয়া স্লুইচ গেটের সম্মুখের পলি অপসারণ কাজ অবশেষে স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে শুরু হয়েছে। চিহ্নিত জলাবদ্ধ এলাকার কেশবপুর,তালা ও ডুমুরিয়া ৩ উপজেলার ২৭ বিলের পানি নিষ্কাশন একটি মাত্র পথ।

এই গেট এখন এলাকার মানুষের যেন মরণ ফাঁদ। দীর্ঘদিন ধরে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দেখ ভালের অভাবে নরনিয়া স্লুইচ গেটের সম্মুখের ৪টি কপাট পলিতে ভরাট হয়ে যায়। এ বছর অনাবৃষ্টির কারণে ভদ্রা নদীর সংযোগ নরনিয়া হতে তেঘরি খাল-বিলে ও পুকুরে পানির অভাব দেখা দিয়েছে। ফলে পাট জাগ দেওয়া নিয়ে কৃষকরা বিপাকে পড়েছে প্রান্তিক পাট চাষীরা। এ পর্যায়ে কেশবপুর উপজেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড ও প্রশাসনের নজরে আসে। প্রশাসন এলাকার কৃষকদের সুবিধার্থে পানি উন্নয়ন বোর্ডের আওতায় নরিনয়া স্লুইচ গেটের সম্মুখ ভাগ ও ভদ্রা নদীর পলি অপসারণ করে জোয়ার ভাটার জোয়ার ভাটার মাধ্যমে এলাকার কৃষক যাতে পাট জাগ দিতে পারে সেই পদক্ষেপ গ্রহণ করেন।

জানা যায়,গত মঙ্গলবার কেশবপুর উপজেলার নির্বাহী অফিসার এম এম আরাফাত হোসেনআরাফাত হোসেন ও উপজেলার ৪ নম্বর বিদ্যানন্দকাটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন সরেজমিন নরনিয়া স্লুইচ গেটটি পরিদর্শন করেন এবং এলাকার পাট চাষীদের সাথে মতামতের ভিত্তিতে পলি অপসারণ ও গেট দিয়ে জোয়ার ভাটা চালু করার ব্যবস্থা নেন। সরেজমিন দেখা যায়, বুধবার (১০ আগষ্ট) সকালে তড়িৎ গতিতে বাউশালা, হিজেলডাঙ্গা, শিরাশুনি, ঘোষড়া, বাদুড়িয়া, ভবানীপুর গ্রামের শতশত কৃষক গেটে পলি অপসারণের কাজ করছে। বাদুড়িয়া গ্রামের কৃষক ফারুখ জানান, আমাদের খাল-বিলে পানি নেই। সে কারণে এই গেট দিয়ে যদি পানি ওঠা নামা করে তাতে এলাকার কৃষকরা পাট জাগ দিতে পারবে। শিরাশুনি গ্রামের আবুল কালাম মোড়ল জানান, আমরা জলাবদ্ধ এলাকার লোকজনের খবর দিয়েছি। আগামীকাল আরও লোকজন আসবে। এ বছর আমরা দিশেহারা হয়ে পড়েছি। কেশবপুর-চুকনগরের সীমান্তবর্তী এলাকা ভদ্রা নদীর সংযোর নরনিয়া কাটাখাল স্লুইচ গেটটি দক্ষিণ অঞ্চলের সংযোগ খাল। এই খাল দিয়ে ৩টি উপজেলার ২৭টি গ্রামের পানি নিষ্কাশন হয়ে থাকে। কিন্তু নরনিয়া স্লুইচ গেটের ৪টি কপাটের সম্মুখ ভাগ ভরাট হওয়ার ফলে পানি উঠানামা বন্ধ রয়েছে। অনাবৃষ্টির কারণে কৃষকদের সৃষ্ট সমস্যা ও আর্থিক অবস্থার বিবেচনা করে কেশবপুর উপজেলা প্রশাসন যুগান্তকারী পদক্ষেপ নিয়েছে। এতে করে অত্র এলাকার হাজার হাজার কৃষক মহা খুশি এবং গেট দিয়ে জোয়ার ভাটার কারণে পাট জাগ ও আমন ধান রোপণ করতে পারবে। এ ব্যাপারে কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এম,এম, আরাফাত হোসেন জনগণকে বলেন, কেশবপুরের আওতাধীন নরনিয়া স্লুইচ গেটের পলি অপসারণ করলে আপনারা পাটজাগসহ বোরোধান রোপন করতে পারবেন।

বিদ্যানন্দকাটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন জানান, নদীতে এখন মিষ্টি পানি সে কারণে গেট দিয়ে পানি জোয়ার ভাটা করলে কৃষকের পাট জাগ ও আমন ধান রোপণ করতে পারবে। জলাবদ্ধ এলাকার মানুষের একটি মাত্র ফসল ইরি-বোরো। পাটের উপযুক্ত মূল্য থাকায় এ বছর খরার কারণে কৃষকরা পাট চাষে আগ্রহী হয়ে বিলের নীচু জমিতে পাট চাষ করেছে। পাটের ফলনও খুব ভালো। এখন পানির অভাবে কৃষকরা পাট জাগ দিতে পারছে না। এই অবস্থা থাকলে কৃষকরা দারুণ আর্থিক ক্ষতি সম্মুখীন হবে বিবেচনা করে এলাকার জনগণ ও প্রশাসনের সহযোগীতায় স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে মরণ ফাঁদ নরনিয়া স্লুইচ গেটের সম্মুখে পলি ভরাট অপসারণ করছে। এলাকার মানুষ এবার স্বস্থিতে পাট জাগ দিতে পারবে বলে তারা মনে করেন।

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন
Copyright © 2022 KhulnarKhobor.com মেইল:khulnarkhobor24@gmail.com।জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা আইনে তথ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক নিবন্ধন আবেদিত।স্মারক নম্বর:-  ০৫.৪৪.৪৭০০.০২২.১৮.২৪২.২২-১২১।এই নিউজ পোর্টালের কোন লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।