1. info@www.khulnarkhobor.com : admin :
  2. khulnarkhobor24@gmail.com : Khulnar Khobor : Khulnar Khobor
মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:২৫ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি/বিজ্ঞাপন
★খুলনার খবরে আপনাদের স্বাগতম★এই নিউজ পোর্টালের কোন লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি★আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন।০১৯২৫-৫৩৬৩৪০★আপনাদের কাছে কোন তথ্য থাকলে আমাদের জানাতে পারেন।যোগাযোগের ঠিকানা, ৪৭,আপার যশোর রোড, খুলনা।ই-মেইল: khulnarkhobor24@gmail.com।মোবাঃ ০১৭২১-৪২৮১৩৫, ০১৭১০-২৪০৭৮৫।★আমাদের  প্রতিনিধি হতে চাইলে যোগাযোগ করুন : ০১৯২৫-৫৩৬৩৪০/০১৭১০-২৪০৭৮৫।★আকাশ ২৬টি HD চ্যানেলসহ মোট ৯০টি চ্যানেল মাত্র টাকা ৩০০/মাস "আকাশ" কিনতে যোগাযোগ করুন।৪৭,আপার যশোর রোড,খুলনা।মোবাঃ০১৭২১-৪২৮১৩৫,০১৯২৫-৫৩৬৩৪০,০১৭১০-২৪০৭৮৫,০১৯৭০-২৪০৭৮৫।লুকাস,  ভলভো,  হ্যামকো,  সাইফপাওয়ার ব্যাটারিসহ সকল প্রকার ব্যাটারি পাইকারি ও খুচরা মুল্যে পাওয়া যায়।সকল প্রকার এসি ও সোলার প্যানেল পাওয়া যায়।এম,ইব্রাহিম এন্ড কোং,৪৬ আপার যশোর রোড, খুলনা।মোবাইল: ০১৭১০-২৪০৭৮৫/০১৯৭০-২৪০৭৮৫★রিক্সা ও ভ্যানের ১নং চায়না ব্যাটারির একমাত্র পাইকারি বিক্রয় প্রতিষ্ঠান এম,ইব্রাহিম এন্ড সন্স।৪৭,আপার যশোর রোড,(সঙ্গিতার মোড়) খুলনা।মোবাঃ ০১৭১০-২৪০৭৮৫/ ০১৯৭০-২৪০৭৮৫/০১৭২১-৪২৮১৩৫।

কেশবপুর অঞ্চলের চাহিদা মিটিয়ে মাছ বিদেশে রপ্তানি হচ্ছে

  • প্রকাশিত : সোমবার, ১৪ মার্চ, ২০২২
  • ১৬৬ বার পড়া হয়েছে

পরেশ দেবনাথ, কেশবপুর (যশোর)// যশোরের কেশবপুর উপজেলার ঘের ও পুকুর থেকে উৎপাদিত মাছ দেশের বিভিন্ন এলাকায় বিক্রি এবং বিদেশে রপ্তানি করা হচ্ছে। উপজেলা মৎস্য অফিস সূত্রে জানা গেছে, কেশবপুরে ৪ হাজার ৬৫৮টি মাছের ঘের বা খামার রয়েছে যার আয়তন প্রায় ৭ হাজার ৪৪৯ হেক্টর। এছাড়া পুকুর রয়েছে ৬ হাজার ৬৪০টি যার আয়তন প্রায় ৬৯৮ হেক্টর। গত বছর এসব জলাশয় থেকে রুই, মৃগেল, কাতল, পাবদা, বাটা, সিলভার কার্প, গ্রাস কার্প, পাঙ্গাশ, তেলাপিয়া, টাকি, কৈ, শিং, বাইম, পুঁটিসহ বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় ৩৩ হাজার ৮২০ মেট্রিক টন মাছ উৎপাদিত হয়। এছাড়া গলদা চিংড়ি ২ হাজার ১৮০, বাগদা চিংড়ি ২৪৫, কুঁচিয়া শূন্য দশমিক এক ও শুঁটকি দেড় মেট্রিক টন উৎপাদিত হয়। এ উপজেলায় মাছের চাহিদা ৬ হাজার ১০ মেট্রিক টন। অপরদিকে ২৭ মাছ চাষি ৫৪ হেক্টর আয়তনের জলাশয়ে ২ দশমিক ২২ কোটি পোনা উৎপাদন করেন। চলতি বছর সাদা মাছ প্রায় ৩৪ হাজার ৫০০, গলদা চিংড়ি ২ হাজার ২৫০, বাগদা চিংড়ি ২৮০ ও শুঁটকি ৫ মেট্রিক টন উৎপাদিত হতে পারে। কেশবপুর শহরের পাইকারি মৎস্য আড়ত, কাটাখালি ও পাঁজিয়া আড়তে নেওয়া হয় উৎপাদিত এসব মাছ। এছাড়াও যশোরের বারোবাজার, মণিরামপুর, কপালিয়া, খুলনা জেলার ডুমুরিয়া উপজেলার চুকনগর, আঠারো মাইলসহ বিভিন্ন আড়তে মাছ পাইকারি বিক্রি করা হয়।

সেখান থেকে এসব মাছ ঢাকা, কক্সবাজার, চট্টগ্রাম সিলেট, রংপুর, বগুড়া, খুলনাসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত ও ভারতে রপ্তানি করা হয়। কেশবপুর খুচরা মাছ বাজারের সভাপতি আতিয়ার রহমান জানান, আড়তের শ্রমিকদের মাধ্যমে মাছ বাজারজাতকরণের উপযোগী করে চাহিদা অনুযায়ী ট্রাকে দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠানো হয়। এছাড়া আখাউড়া সীমান্ত দিয়ে সপ্তাহে ৫ দিন প্রায় ২০০ মণ করে মাছ ভারতে রপ্তানি হয়। কেশবপুর পাইকারি মৎস্য আড়তের সভাপতি আবদুল হান্নান বিশ্বাস বলেন, প্রতিদিন এখানকার পাইকারি আড়তের ২২ ব্যবসায়ীর কাছে ঘের ও পুকুরের প্রায় ২ হাজার মণ মাছ আসে। প্রায় দেড় থেকে ২ কোটি টাকার মাছ প্রতিদিন বিক্রি হয়। উপজেলা সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা আলমগীর কবীর বলেন, এ উপজেলায় ৪ হাজার ৬৫৮টি মাছের ঘের ও ৬ হাজার ৬৪০টি পুকুর রয়েছে। মাছ রপ্তানি করে গত বছর আয় হয়েছে প্রায় ৭৫৭ কোটি টাকা। চলতি বছর প্রায় ৮৫০ কোটি টাকার মাছ বিক্রি হতে পারে।

এ উপজেলায় মৎস্যচাষী রয়েছেন প্রায় সাড়ে ১১ হাজার মাছের খামারে খণ্ডকালীন কর্মসংস্থান হয়েছে প্রায় ১৫ হাজার জনের। এছাড়া উপজেলার তিনটি মৎস্য আড়তে প্রায় ৭০০ শ্রমিক কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন। সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সজীব সাহা বলেন, চলতি বছর এ উপজেলায় মাছ চাষের জন্য ঘের ও পুকুরের সংখ্যা বৃদ্ধি পায়নি।

উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে মৎস্য চাষিদের বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ প্রদান করে তাদের নিবিড় পর্যবেক্ষণ করায় মাছের উৎপাদন বেড়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন
Copyright © 2022 KhulnarKhobor.comজাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা আইনে তথ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক নিবন্ধন আবেদিত।নিবন্ধন নাম্বার:...।যেকোন তথ্য পাঠাতে আমাদের কাছে মেইল করুন।আপনাদের চারপাশে ঘটে যাওয়া সকল ঘটনার খবর আমাদের জানাতে পারেন।ই-মেইল: khulnarkhobor24@gmail.com।এই নিউজ পোর্টালের কোন লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।